মোবাইলে কথা বলার খরচ বাড়ছে না আবার আগের জায়গায় ফিরছে।


0
মোবাইলে কথা বলা,মোবাইলে কথা বলার খরচ

অনেক আলোচনা ও সমালোচনার পরে সরকার মোবাইল পরিষেবা গুলিতে অতিরিক্ত শুল্ক আরোপ করা থেকে সরে আসছে। ফলস্বরূপ, মোবাইলে কথা বলা এবং ইন্টারনেট ব্যবহার করা গ্রাহকদের ব্যয় হ্রাস পাবে।

২০২০-২১ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট ঘোষণার সাথে সাথেই মোবাইল অপারেটররা গ্রাহকদের এসএমএসের মাধ্যমে পরিপূরক শুল্ক বৃদ্ধির বিষয়ে অবহিত করে এবং এটি বাস্তবায়ন করে। যেমন- ১১ ই জুনের রাত থেকে গ্রাহকদের মোবাইল পরিষেবাগুলির জন্য অতিরিক্ত অর্থ নেওয়া হচ্ছে।

প্রস্তাবিত বাজেট ঘোষণার আগে, মোবাইল পরিষেবাগুলিতে ১৫ শতাংশ ভ্যাট এবং এক শতাংশ উপার্জন পাশাপাশি ১০ শতাংশের পরিপূরক শুল্ক ছিল। সেই হিসাবে, যদি কোনও গ্রাহক তার মোবাইলে ১০০ টাকা রিচার্জ করে তবে সরকার ২২ টাকা ৭২ পয়সা ভ্যাট-ট্যাক্স পাচ্ছিল। প্রস্তাবিত বাজেটে ভ্যাট-সারচার্জের হার অপরিবর্তিত রাখা হলেও পরিপূরক শুল্ক ১৫ শতাংশ করা হয়েছে। ১০০ টাকা রিচার্জ করলে ভ্যাট-ট্যাক্স জন্য ২৫ টাকা গ্রাহকের কাছ থেকে কেটে নেওয়া হয়।

ফলস্বরূপ, গ্রাহকদের মোবাইল কথা বলা এবং ইন্টারনেট ব্যবহারের ব্যয় বেড়ে যায়। যদিও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম বাজেট পরবর্তী সংবাদ সম্মেলন বলেছেন, বর্তমানে মোবাইল কলরেট হার এত কম যে অযথা কথা বলার পরিমাণ বেড়েছে। এজন্য অতিরিক্ত কথা বলার সময় ট্রেনের সাথে দুর্ঘটনার ঘটনাও ঘটেছে। তবে আমরা অতিরিক্ত কথা বলার জন্য এই শুল্ক বাড়াইনি। বরং কলরেট খুব কম। তাই এক্ষেত্রে মাত্র ৫ শতাংশ শুল্ক বাড়ানো হয়েছে।

সূত্রটি জানায়, করোনার পরিস্থিতিতে সব শ্রেণির মানুষের আয় কমেছে। এই পরিস্থিতিতে বাজেটে মোবাইল পরিষেবাগুলিতে অতিরিক্ত পরিপূরক শুল্ক আরোপ করা মানুষের মনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করেছে।

এ ছাড়া মোবাইল অপারেটরসহ ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের তুমুল আপত্তি রয়েছে। আলোচনা ও সমালোচনা শেষে এনবিআর সরকারের শীর্ষ স্তরের সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে মোবাইল পরিষেবাগুলিতে পরিপূরক শুল্ক আগের স্তরে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। অর্থ বিল পাস হওয়ার দিন এটি সংশোধন করতে পারে। মোবাইল অপারেটর রবির প্রধান কর্পোরেট কর্মকর্তা শাহেদ আলম যুগান্তরকে বলেন, সরকার প্রস্তাবিত বাজেটে মোবাইল সেবার পরিপূরক শুল্ক বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে, যা Provisional Collection অব ট্যাক্সেস আইনের আওতায় অবিলম্বে কার্যকর করার নিয়ম রয়েছে।

তাই মোবাইল সংস্থাগুলি এসএমএসের মাধ্যমে পরিষেবাগুলিতে সম্পূরক  শুল্ক বাড়ানোর জন্য গ্রাহকদের অবহিত করে এটি বাস্তবায়ন করেছে। অর্থাৎ এটি অতিরিক্ত হারে কর আদায় করেছে। চূড়ান্ত বাজেটে যদি সরকার পূর্বের অবস্থানে সম্পূরক শুল্ক  গ্রহণ করে তবে অপারেটররা অতিরিক্ত কর কাটা বন্ধ করবে এবং পূর্ববর্তী বিধি অনুসারে ভ্যাট-সম্পূরক  শুল্ক আদায় করবে। তিনি আরও বলেছিলেন, প্রস্তাবিত বাজেটের পরে গ্রাহকদের কাছ থেকে কর হিসাবে আদায় করা অতিরিক্ত অর্থ আইন অনুযায়ী সরকারী কোষাগারে জমা করা হবে। মোবাইল অপারেটরদের এই টাকা রাখার সুযোগ নেই।

প্রসঙ্গত, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে মোবাইল পরিষেবাগুলিতে ১ শতাংশ সারচার্জ আরোপ করা হয়েছিল। তারপরে ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ১৫ শতাংশ ভ্যাট পাশাপাশি তিন শতাংশ পরিপূরক শুল্ক আরোপ করা হয়েছিল। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে সম্পূরক শুল্ক বাড়িয়ে ৫ শতাংশ করা হয়েছিল। ২০১৯-২০ আর্থ বছরে সম্পূরক শুল্ক আরও বাড়িয়ে ১০ শতাংশে করা হয়।

ইতিমধ্যে ভ্যাট আপিলের ব্যয়ও আগের জায়গায় স্থানান্তরিত হচ্ছে। প্রস্তাবিত বাজেটে আপিল ট্রাইব্যুনাল ও আপিল কমিশনারেটকে ১ জুলাই থেকে কার্যকর হওয়া কথা রয়েছে। আপিল ট্রাইব্যুনাল ও আপিল কমিশনারেটকে ভ্যাট আপিল দায়েরের জন্য বিতর্কিত আদেশে দাবি করা শুল্কের ১০ শতাংশের পরিবর্তে ২০ শতাংশ দেওয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে।

অর্থমন্ত্রী বলেছিলেন যে অযৌক্তিক ভ্যাট মামলা দায়ের প্রবণতা কমাতে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তবে ব্যবসায়ী সম্প্রদায় এর তীব্র বিরোধিতা করেন। ব্যবসায়ী নেতারা বলছেন যে উদ্যোগটি ব্যবসায়ের সুবিধার্থে এবং ন্যায়বিচারের বিরুদ্ধে। এটি ব্যবসায়ীদের কাজের মূলধন সঙ্কুচিত করবে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন কেউ স্বেচ্ছায় বা খুশিতে আদালতে যায় না। ব্যবসায়ীরা তখনই আদালতে যায় যখন ন্যায়বিচার পাওয়া অনিশ্চিত হয়ে যায়। তাছাড়া বছরের পর বছর মামলা আদালতে আটকে রাখার দায়িত্ব ব্যবসায়ীদের নয়।

দেশের নাগরিক হিসাবে যে কোনও বিষয়ে আইনী বিচার চাওয়ার অধিকার সবারই রয়েছে। মামলা-মোকদ্দমার অজুহাত বা রাজস্বের বিড়ম্বনায় এত বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যবসায়ীদের উপর চাপিয়ে দেওয়া যৌক্তিক সিদ্ধান্ত নয়। এই সিদ্ধান্ত ন্যায়বিচার এবং ব্যবসায়িক সুবিধার বিরুদ্ধে।

সবাই ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন নতুন নতুন আপডেট পেতে Shamimblog এর সাথেই থাকুন ধন্যবাদ।


Like it? Share with your friends!

0

0 Comments

Your email address will not be published. Required fields are marked *