সোশাল মিডিয়া ফেসবুকে কেনাকাটায় প্রতারণা-যেভাবে সাবধান হবেন!

ফেসবুকে বিভিন্ন গ্রুপ বা পেজের মাধ্যমে কেনাকাটা জনপ্রিয় হয়েছে। অনেকে নিজের উদ্যোগে পেজ খুলে অনলাইনে ব্যবসা করছেন। করোনার কারণে ঘর বন্দি হয়ে পড়েছে মানুষ। ফলস্বরূপ, অনলাইন কেনাকাটা বেড়েছে। আর সেই সুযোগে এক ধরণের প্রতারক অনলাইন শপিংয়ের নামে প্রতারণা করছে। এই অনলাইন শপগুলির বাহারি অফার সহজেই যে কোনও অজ্ঞ ক্রেতার মন কেড়ে নেয়। বাজারের চেয়ে কম দামে ব্র্যান্ডের নতুন মোবাইল ফোন বিক্রি করার জন্য এই লোভনীয় বিজ্ঞাপনগুলির ফাঁদে পড়ছেন অনেকেই।

সম্প্রতি ফেসবুকে কিছু জালিয়াতিরা বিভিন্ন ব্যবসায়ের নামে অনলাইন শপিং পেজ খোলে এবং বিশেষ দরে স্মার্টফোন বিক্রি করার জন্য ক্রেতাদের প্রতারণা করছে। এই অনলাইন শপ থেকে পণ্য অর্ডার করে, কেউ কেউ পুরানো নষ্ট মোবাইল পাচ্ছেন, আবার কেউ খালি প্যাকেট পাচ্ছেন।

এই ক্ষেত্রে, ভুক্তভোগীকে চ্যালেঞ্জ জানানো হলে, প্রতারণামূলক সংস্থাগুলি ব্যবহার কারীর ফোন নম্বর বা অ্যাকাউন্ট ব্লক করে দেয়। এই জাতীয় পেজগুলি সাধারণত বিপুল সংখ্যক লোকের কাছ থেকে ব্যবসায় শুরু করার কয়েক দিনের মধ্যে প্রচুর অর্থ হাতিয়ে নিয়ে ব্যবসা গুটিয়ে ফেলে।

ক্র‍্যাফের  প্রেসিডেন্ট জেনিফার আলম অনলাইন শপিংয়ের সময় সাধারণ মানুষকে সাবধান হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। তিনি বলেছিলেন যে, এই মুহূর্তে করোনায় জাতীয় স্বাস্থ্যসেবা সরঞ্জাম অনলাইনে বিক্রির ক্ষেত্রে প্রচুর জালিয়াতি হচ্ছে। কারণ এই সমস্ত ব্যবসায়ী কুরিয়ার পরিষেবা সরবরাহে ক্যাশ অন ডেলিভারি ফলস্বরূপ, পণ্য গ্রহণের আগে কুরিয়ারে টাকা জমা দিতে হবে। সুতরাং প্যাকেট অর্ডার করা পণ্য আছে কিনা তা দেখার সুযোগ গ্রাহকের নেই।

আবার এখন যেহেতু সবাই বাজারে যেতে পারছেন না, ফেসবুক পেজ থেকে প্রতিদিনের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনছেন, আগে থেকে ডেলিভারিও পাচ্ছেন না, নিম্নমানের পণ্য সরবরাহ করছেন, কিছু ক্ষেত্রে অনুপযুক্ত পণ্য সরবরাহের অভিযোগ রয়েছে।

অনলাইনে পণ্য কেনার সময় সচেতনতা হল প্রথম দিক যা আপনার জানা উচিত। আপনার অবহেলার কারণে আপনি আর্থিক ক্ষতির পাশাপাশি বিভিন্ন ধরণের অনলাইন হয়রানির মুখোমুখি হতে পারেন। অনলাইনে কেনাকাটার আগে এই সাবধানতাগুলি অনুসরণ করতে হবে:

  • কোনও আকর্ষণীয় বা লোভনীয় বিজ্ঞাপন বা অফার দেখে কিনতে ছুটে যাওয়া ঠিক নয়।
  • সবার আগে, প্রতিষ্ঠানের নাম ঠিকানা এবং মালিকের নাম এবং ঠিকানার মধ্যে কোনও অসামঞ্জস্য আছে কিনা তা পর্যবেক্ষণ করা দরকার।
  • অনেক অনলাইন সংস্থা ট্রেড লাইসেন্স নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করে। ওয়েবসাইটে ট্রেড লাইসেন্সের অনুলিপি আছে কিনা তা আপনাকে দেখতে হবে,যদি না হয়, তার কাছে ট্রেড লাইসেন্স রয়েছে কিনা এবং যদি থাকে তবে এর নিবন্ধকরণ নম্বর জেনে নেওয়া উচিত।
  • যদি আপনাকে কোনও মোবাইল ব্যাংকিং নম্বরে মূল্য দিতে বলা হয়, তবে একাধিক নম্বর থেকে কল করে নম্বরটি যাচাই করা ভাল। এবং যদি আপনাকে কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে পণ্য সরবরাহ করতে হয়, যে পণ্যটি সরবরাহ করা হয়েছে এবং ক্রয়ের রশিদ দেওয়া হয়েছে যাচাই করে নিন।
  • যে কোনও পণ্য কেনার সময়, ওয়েবসাইট বা মাধ্যমগুলোর উপর নির্ভর করা ভাল যারা প্রথমে পণ্য সরবরাহ করে এবং বিক্রয় প্রতিনিধি তা গ্রহণের পরে সরাসরি মূল্য প্রদান করে।
  • আপনাকে পণ্যটি হাতে পেয়ে এবং এটি চেক করতে হবে।
  • অনেকেই তাদের পেজ বুস্ট, করার মাধ্যমে তাদের পেজ অ্যানগেজমেন্ট প্রোডাক্ট রিচ এবং লাইক বাড়িয়ে বাড়িয়ে তোলে। এতে করে অনেক সময় বুঝতে অসুবিধা হয় এটি আসল পেজ কিনা। সেক্ষেত্রে ক্যাশ অন  ডেলিভারি কোনও বিকল্প নয়।
  • বিশ্বস্ত বিক্রেতা এবং দীর্ঘ দিন ধরে ব্যবসা করার খ্যাতি সহ পেজ বা গ্রুপগুলোর ফিন্যান্সিয়াল স্ট্যাবিলিটি 
    পণ্যটি ক্যাশ অন বিতরণ করার জন্য আর্থিক স্থিতিশীলতা থাকে। তাই আর্থিক ক্ষতি এড়াতে এটিতে নজর রাখুন।

ক্রাফের টেকনিক্যাল ক্রু বিএম ইয়ামিন  বলেছিলেন যে ফেসবুকে পেজ বা গ্রুপ থেকে কেনাকাটা করার সময় অনেক কিছুই লক্ষ করতে হবে। এখন ফেসবুকে অনেক প্রডাক্ট বেচাকেনার পেজ থেকে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য থেকে এক্সপেন্সিভ জিনিসপত্র কেনা এবং ভাড়াও নিয়ে থাকে। যে সকল বিষয় লক্ষ্য রাখতে হবে এই বেচাকেনার প্রক্রিয়ার মধ্যে সেগুলো হলো-

  • পেজগুলি সর্বদা নতুন ভাবে তৈরি করা হয়।
  • পেজে কম লাইক রয়েছে এবং বিজ্ঞাপন দেওয়া পণ্যগুলি বাদে অন্য পোস্টে কোন লাইক মত মন্তব্য নেই। থাকলেও এটাই খুব কম একটি বিজনেস পেজ থেকে।
  • কখনোই অর্ডার করবেন না পেজের রিভিউ অপশন না থাকা পেজ থেকে।
  • পেজ বা গ্রুপেট পোস্টের নীচে মন্তব্যগুলি ভাল করে দেখে নিন।
  • প্রকৃতপক্ষে, পেজটিতে। যদি পণ্যটির লাইভ না করে, ফোন নম্বর এবং ঠিকানা বা সাইটটি সংযুক্ত না থাকে তবে ধরে নেওয়া যায় যে অনেক ক্ষেত্রেই প্রতারণামূলক হতে পারে।
  • ওয়েবসাইটের ক্ষেত্রে ফেক/নকল সাইট বা ক্লোন সাইট কিনা দেখা।
  • অস্বাভাবিক কম মূল্যে বা অস্বাভাবিক মূল্যছাড় স্বাভাবিকের চেয়ে ।

আপনি যদি কোনও পেজ বা গ্রুপে উপরের সমস্যাগুলি দেখতে পান তবে সেখানে অর্ডার না করাই ভাল। এছাড়া আপনি জরুরি প্রয়োজনে পুলিশ জাতীয় জরুরী পরিষেবা বিনামূল্যে ৯৯৯ নম্বরে কল করতে পারে।

Add a Comment

Your email address will not be published.