অনলাইন কেনাকাটায় আগ্রহ বাড়ছে অনেক

প্রতিদিনের কাজ এবং ট্র্যাফিক জ্যামের ঝামেলা এড়াতে এবং সময় সাশ্রয় করার জন্য ভার্চুয়াল বাজার বা অনলাইন শপিং দীর্ঘকাল ধরে একটি জনপ্রিয় উপায়। তবে কোভিড -১৯ সংকটের সময় অনলাইন শপিং সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে এবং নিরাপদে থাকার আরও একটি নাম হয়ে দাঁড়িয়েছে।

শপিংমল বা বাজারে কেনাকাটা রিকশা বা ট্যাক্সি হিসাবে যানবাহনের মাধ্যমে সংক্রমণ ছড়াতে পারে। শপিংমল শপ, লিফট, সিঁড়ি, টয়লেট, ফুড কোর্ট, পাবলিক প্লেসে এমনকি অর্থ লেনদেনের মাধ্যমে ভাইরাস সংক্রমণ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

আবার আপনি হয়ত কোনও শপিং মলে গিয়ে শার্ট বা জুতোর ট্রায়াল দিচ্ছেন। তবে এটি এমনও হতে পারে যে কোনও করোনার রোগী কিছুক্ষণ আগে সেই শার্ট বা জুতো ট্রায়াল করেছিলেন। এবং শপিং মল বা কাঁচা বাজারে বলুন, আপনি যখন কেনাকাটা করতে যান, আপনাকে বিক্রয়কর্মী এবং অন্যান্য ক্রেতার কাছে যেতে হবে। শপিংমল বা মার্কেটে সংক্রমণ ছড়িয়ে দেওয়ার আরও অনেক সম্ভাবনা রয়েছে। এটি কেবল নিজেকেই নয়, পুরো পরিবারকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলছেন।

দেশের ই-কমার্স সংস্থাগুলি স্বাস্থ্য বিধিমালা অনুসরণ করে গ্রাহকদের বাড়িতে পণ্য সরবরাহ শুরু করেছে। অর্ধশতাধিক প্রতিষ্ঠিত ব্র্যান্ডের পাশাপাশি প্রায় একই সংখ্যক নতুন ব্র্যান্ড ই-বাণিজ্য প্ল্যাটফর্মে যোগদান করেছে এবং অনলাইনে পরিষেবা কার্যক্রম পরিচালনা করছে। শুধু ঢাকা শহরে নয়, বিভিন্ন জেলা শহরেও অনলাইন শপিংয়ে ক্রেতাদের আগ্রহ বাড়ছে। তারা ঘরে বসে বিভিন্ন ফেসবুক পেজে পণ্যগুলি দেখে মেসেঞ্জার বা ফোনে অর্ডার দিচ্ছেন। অর্ডার পাওয়ার পরে সংস্থার কর্মরত ডেলিভারি ম্যান নির্ধারিত পণ্য ঘরে ঘরে পৌঁছে দিচ্ছে। গ্রাহকরা পণ্যটি হাতে পাচ্ছেন এবং নির্ধারিত দাম বুঝে দিচ্ছেন। কখনও বিকাশ বা রকেটে পেমেন্ট করছেন।

কিছু অনলাইন শপ ক্রেতাদের সুরক্ষার জন্য বিভিন্ন কর্মসূচির আয়োজন করেছে। কিছু সংস্থা ক্রেতাদের নগদ ছাড়, গিফট ভাউচার, ক্যাশব্যাক এবং উপহারও দিচ্ছে। কিছু সংস্থা বিনামূল্যে হোম ডেলিভারি অফার করে। যেমন – প্রিয়শপ ডটকম, দারাজ ডটকম, চালডাল ডটকম, বন্ধনশপ ডটকম, বাগডুম ও হুর নুসরাতসহ বিভিন্ন অনলাইন দোকান ক্রেতাদের সুবিধার্থে মাথায় রেখে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

এ বিষয়ে অনলাইন শপ ‘বন্ধনশপ ডট কম’ এর প্রধান নিজাম উদ্দিন বলেন, বাড়িতে বসে কেনাকাটা করে করোনা ঝুঁকি অনেকটা এড়ানো সম্ভব। তাই আমরা এখন কোরনায় ক্রেতার আর্থিক সংকট মাথায় রেখে ক্রেতাদের এই বিষয়ে উৎসাহ দেওয়ার জন্য নামমাত্র মুনাফা করছি। গ্রাহকের সন্তুষ্টি, সুবিধা এবং সুরক্ষা এখন আমাদের মূল লক্ষ্য। করোনার সংকটে আমরা পুরানো ক্রেতাদের সমস্ত পণ্যগুলিতে ১০-২০ শতাংশ ছাড় এবং নতুন-পুরাতন সমস্ত ক্রেতাদের জন্য কিছু পণ্যগুলিতে ৩০-৫০ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দিচ্ছি। আমরা নতুন পণ্যটির সাথে মেম্বার কার্ড পৌঁছে দিচ্ছি, যা থেকে তিনি আজীবন ছাড়ের সুবিধা পাবেন।

বর্তমানে, করোনার প্রায় ২১৫ টি দেশ এবং অঞ্চলে করোনা ছড়িয়ে পড়েছে। এই সংকটে সামাজিক দূরত্ব এবং স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ বা মনে চলার কোন বিকল্প নেই। এই ক্ষেত্রে, আমরা অনলাইনে কেনাকাটা/শপিং করতে পারলে আমাদের মধ্যে অনেকে করোনার ঝুঁকি এড়াতে পারে। এখন যেহেতু প্রায় সব ধরণের পণ্য অনলাইনে পাওয়া যায়, আমরা সংক্রমণের ঝুঁকি নিয়ে বাজারে যাওয়ার চেয়ে অনলাইন শপিংয়ের উপর বেশি জোর দিয়ে থাকি। তবে অনলাইনে কেনাকাটা করার সময় কিছু বিষয় সতর্ক থাকতে হবে-

১. ক্রয় করার আগে, রিভিউ বিভাগে যান এবং পণ্যের পর্যালোচনাগুলি পড়ুন।

২. করোনার কারণে অনলাইনে বিভিন্ন ধরণের অফার পাওয়া যাচ্ছে। তবে, বিশেষ অফারটি দেখে পণ্যটি নিশ্চিত করবেন না। অনেক সময় পণ্যটির মান অফারে ভাল নাও হতে পারে। আসল পণ্য এবং রেপ্লিকা পণ্য সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়ার পরে আপনার পছন্দের পণ্যটি অর্ডার করুন।

৩. অনলাইনে অর্ডার দেওয়ার সময় কোনও পেমেন্ট কার্ড বা বিকাশ করার চেষ্টা করুন। এটি অর্থের লেনদেনের মাধ্যমে করোনার সংক্রমণের ঝুঁকি হ্রাস করবে; বিশেষ প্রয়োজনে পণ্য পরিবর্তন করার নিয়মগুলি জেনে রাখুন।

৪. পণ্যটি হাতে পেতে কত সময় লাগবে তা ভালভাবে জানুন।

৫. আপনি যে ওয়েবসাইট বা ফেসবুক পেজ থেকে পণ্যটি কিনবেন তার কোনও অফিস বা দোকান রয়েছে কিনা এবং এর ঠিকানা খুব ভালো ভাবে যাচাই করে তারপরে পণ্যটি কিনুন।

৬.ডেলিভারি ম্যান থেকে পণ্য নেওয়ার সময় মাস্ক এবং হ্যান্ডগ্লাভস পরুন

৭.পণ্যটি নেওয়ার সময় ব্যাগের বাইরের জীবাণুনাশক স্প্রে করুন। আপনি পণ্যটি পাওয়ার সাথে সাথে পণ্য প্যাকেটটি খোলার চেষ্টা করুন। এটি ফেলা সম্ভব না হলে, সাবান পানি দিয়ে প্যাকেটটি ভালভাবে মুছুন। এবং যদি পণ্যটি ধুয়ে নেওয়া সম্ভব হয় তবে এটি ধুয়ে ব্যবহার করুন। তবে সরাসরি শাকসবজি বা মাছ এবং মাংসে কখনই জীবাণুনাশক স্প্রে বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার করবেন না। এই পণ্যগুলিকে সাধারণ পানিতে ১ ঘন্টা ভিজিয়ে রেখে ধুয়ে ফেলুন। প্রয়োজনে বেকিং সোডামিশ্রিত পনিতে ভিজিয়ে রাখতে পারেন।

৮. ব্যাগ থেকে আইটেমগুলি সরিয়ে নেওয়ার পরে হ্যান্ডওয়াশ দিয়ে আপনার হাত ভাল করে ধুয়ে ফেলুন।

সবাই ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন আল্লাহ হাফেজ।

Add a Comment

Your email address will not be published.